স্বাগতম :
আজ: শনিবার, এপ্রিল ১৯, ২০১৪
উৎসব আমেজ রাজধানীতে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধ’: নিহত ১ নিউ ইয়র্কের বাস টার্মিনালে বিস্ফোরণ কমানো হয়েছে স্বর্ণের দাম শীঘ্রই ডিএনসিসি উপ-নির্বাচন বিআরটিসি বাসে ধুমপানমুক্ত সাইন স্থাপন ট্রাম্পের সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদ চালে’র কেজি ৭০, আলু’র ১ টাকা ডিএনসিসি মেয়র পদ শূন্য ঘোষণা বালিতে আগ্নেয়গিরি: সর্বোচ্চ সতর্কতা

তীব্র গরমে বাজারে সবজির চাহিদা বাড়ছে

রিয়াদ হাসান,এসবিডি নিউজ24 ডট কমঃ পহেলা বৈশাখের পর থেকে রাজধানীতে কমেছে মাংসের দাম। পাইকারি বাজারে সরবরাহ বাড়ায় মাংসের দাম কমেছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। ১৯ এপ্রিল সকালে রাজধানীর কারওয়ান বাজার ঘুরে দেখা গেছে, পয়লা বৈশাখের পর থেকে এ পর্যন্ত প্রতিকেজি গরুর মাংসের দাম কমেছে ৪০ টাকা, ব্রয়লার ও লেয়ার মুরগির দাম কমেছে ২০ টাকা। বাজারে গরুর মাংস ২৮০ টাকা, ব্রয়লার ও লেয়ার মুরগি ১৪০ থেকে ১৪৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। তবে বাজারে কাঁচা মরিচ, বেগুন, করলা, পেপেসহ সবজির দাম কেজিতে পাঁচ থেকে ১০ টাকা বেড়েছে। মাংস ব্যবসায়ী মো. আফজাল হোসেন বলেন, পয়লা বৈশাখের পর পাইকারি বাজারে গরুর দাম কমায় বাজারে মাংসের দাম কমেছে।
মাংস: বাজারে গরুর মাংস ২৮০ টাকা, খাসির মাংস ৪৮০ টাকা, দেশী মুরগি বিক্রি হচ্ছে ৩৫০ থেকে ৪০০ টাকা, ব্রয়লার মুরগি ১৪৫ টাকা থেকে ১৪০, লেয়ার মুরগি ১৪০ টাকা থেকে ১৫০, হাঁস ৩৫০ টাকা, ভেড়া ও ছাগীর মাংস ৪৫০ টাকা এবং কবুতরের বাচ্চা ২৬০ টাকা জোড়া হিসেবে বিক্রি হচ্ছে।
মাছ: মাছ বাজারে ৮০০ থেকে ৯০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ দুই হাজার ৮০০ টাকা, কাতল মাছ ৪০০ টাকা, রুই মাছ ৩৫০ টাকা, তেলাপিয়া ১৩০ টাকা, চায়না পুঁটি ১৩০ টাকা, পাঙ্গাস ১২০ থেকে ১৪০ টাকা, চিংড়ি (বড়) এক হাজার ২০০ টাকা, চাষের কৈ ২৫০ টাকা, সিলভার কার্প ১৩০ টাকা, শিং মাছ ৮৫০ টাকা, বজরি টেংরা ৩৫০ টাকা, নলা মাছ ২৫০ টাকা, আইড় মাছ ৭০০ টাকা, কার্ফু মাছ ১৩০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।
কাঁচাবাজার : কাঁচাবাজার ঘুরে  দেখা গেছে, প্রতিকেজি দেশী শসা ৫০ টাকা, আমদানি শসা ৩০ টাকা, কাঁচামরিচ ৬০ টাকা, লম্বা বেগুন ৪০ টাকা, গোল বেগুন ৬০ টাকা, শিম ৪০  টাকা, ঝিঙ্গা ৪০ টাকা, চিচিঙ্গা ৪০ টাকা,  আলু ১৫ টাকা, গাজর  ৩০ টাকা, করলা ৪০ টাকা, উস্তা ৪০ টাকা, ঢেঁড়স ৪০ টাকা, পটল ৪০ টাকা, পেঁপে  ২৫ টাকা, কচুর লতি ৫০ টাকা, বরবটি ৪০ টাকা, টমেটো ৫০ টাকা, ক্যাপসিক্যাম ২০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।
এছাড়া, প্রতিটি ফুলকপি ৫০ টাকা, বাঁধাকপি ৪০ টাকা, মিষ্টিকুমড়া ৪০ থেকে ১০০ টাকা ও লাউ ৩০ টাকা, জালি কুমড়া ২৫ টাকা পিস হিসেবে বিক্রি হচ্ছে এবং প্রতিহালি কাঁচকলা ৩০ টাকা ও লেবু ২০ টাকা থেকে ৪০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।
এছাড়া, বাজারে লালশাক, ডাটা, পুঁইশাকের আঁটি ২০ থেকে ৩০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে এবং লেটুস পাতা প্রতিটি ১৫ টাকা, পুদিনাপাতা ১০০ গ্রাম ২০ টাকা, ধনেপাতা প্রতি ২৫০ গ্রাম ২০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।
মুদি: মুদি দোকান ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিকেজি দেশী পেঁয়াজ ২৮ থেকে ৩০ টাকা, আমদানি  পেঁয়াজ ২৮ টাকা থেকে ৩০, চায়না বড় রসুন ৭৫ টাকা, দেশি রসুন ৬০ টাকা, একদানা রসুন ১২০ টাকা, চায়না আদা ২৬০ টাকা, আমদানি আদা ২০০ টাকা, শুকনা মরিচ ১৬০ টাকা , হলুদ ১২০ টাকা, হলুদের গুঁড়া ১৮০ টাকা, মরিচের গুঁড়া ২৫০ টাকা, ধনিয়া ১০০ টাকা, আটা (২ কেজির প্যাকেট) ৭০ টাকা, ময়দা ( দুই কেজির প্যাকেট) ৮৫ টাকা, দারুচিনি ৩০০ টাকা, এলাচি এক হাজার ২০০ থেকে এক হাজার ৭০০ টাকা, জিরা ৩৫০ টাকা থেকে ৪৫০ টাকা, ভেশন ৬০ টাকা, দেশি মশুর ডাল ১১০ টাকা, ভারতীয় মশুর ডাল ৮০ টাকা, খেসারি ডাল ৫০ টাকা, মুগ ডাল ১৩০ টাকা, ছোলা ৬০ টাকা, অ্যাংকর ডাল ৫০ টাকা, মাসকলাই ৯০ টাকা,  খোলা চিনি ৪৪ টাকা, প্যাকেট চিনি ৪৮ টাকা ও প্রতি লিটার সয়াবিন খোলা ১০৫ টাকা ও বোতলজাত সয়াবিন ১১৫ টাকা হিসেবে বিক্রি হচ্ছে।
চাল: চালের বাজারে প্রতিকেজি নাজিরশাইল ৫২ থেকে ৫৫ টাকা, মিনিকেট ৫২ থেকে ৫৪  টাকা, লতা আটাশ ৪৪ থেকে ৪৫ টাকা, মোটা চাল ৩৫ টাকা, জিরা নাজির ৫২ থেকে ৫৪ টাকা, পাইজাম ৪০ টাকা, চিনি গুড়া ১০০ টাকা, পারিজা ৩৬ থেকে ৩৮ টাকা, বিআর-২৮-৪৪ টাকা, বিআর-২৯-৪২ টাকা, হাসকি ৪২ টাকা, স্বর্ণা ৩৫ টাকা থেকে ৩৬ টাকা, লাল বিরই ৪৫ থেকে ৪৬ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।
ডিম: বাজারে প্রতি হালি ফার্মের মুরগির লাল ও সাদা ডিম ২৬ টাকা, হাঁসের ডিম ৩৫ টাকা, পাকিস্তানি মুরগির ডিম ৪০ টাকা, দেশি মুরগির ডিম ৪০ টাকা হালি দরে বিক্রি হতে দেখা গেছে।

প্রাসঙ্গিক সংবাদঃ

  • পলাশবাড়ীসহ উত্তরাঞ্চলের হাট-বাজারে অবাধে বিক্রয় হচ্ছে পিরানহা মাছ
  • পাল্লা দিয়ে বাড়তে শুরু করেছে নিত্যপণ্যের দাম
  • হরতালের প্রভাবঃ লাগামহীন দ্রব্যমূল্য
  • জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধিতে তীব্র শীতেও বাজারে আগুন!
  • স্বর্ণের দাম কমেছে ।। ভরিপ্রতি দেড় হাজার টাকা পর্যন্ত!