স্বাগতম :
আজ: রবিবার, জুলাই ১২, ২০১৫
শঙ্কামুক্ত নন হায়াৎ আইভী ডিএনসিসি উপনির্বাচন: ৩ মাসের জন্য স্থগিত বাগদাদে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরন অতিরিক্ত ডিআইজি পদমর্যাদায় রদবদল অতিরিক্ত সচিব ও যুগ্ম সচিব পর্যায়ে রদবদল নাখালপাড়ায় জঙ্গি অভিযান: নিহত ৩ দেশ কেন মাদক থেকে মুক্ত হতে পারছে না? মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়কের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস নির্মল সেনের পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত পুলিশ সপ্তাহ শুরু

বাংলাদেশের স্মরণীয় জয়

ক্রীড়া প্রতিবেদক,এসবিডি নিউজ24 ডট কমঃ দক্ষিণ আফ্রিকাকে ১৬২ রানে অলআউট করে বাংলাদেশের জয়ের ভিতটা তৈরি করে দিয়েছিলেন মুস্তাফিজ, রুবেল, নাসিররা। আর দারুণ ব্যাটিংয়ে জয়ের বাকি কাজটুকু সারলেন সৌম্য-মাহমুদউল্লাহরা। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দ্বিতীয়বারের মতো ওয়ানডেতে জয় পেল বাংলাদেশ। আর এই জয়ে তিন ম্যাচের সিরিজে ১-১ সমতা ফেরাল টাইগাররা। ১২ জুলাই (রোববার) টস জিতে আগে ব্যাট করে ৪৬ ওভারে মাত্র ১৬২ রানে অলআউট হয় প্রোটিয়ারা। জবাবে সৌম্য-মাহমুদউল্লাহর ফিফটিতে ৭ উইকেট ও ১৩৪ বল হাতে রেখেই লক্ষ্যে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ।

প্রথম ওয়ানডেতে ৬ উইকেট নিয়ে বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইনআপ ধসিয়ে দিয়েছিলেন প্রোটিয়াদের অভিষিক্ত পেসার কাগিসো রাবাদা। আজ দ্বিতীয় ওয়ানডেতেও পর পর দুই ওভারে তামিম ইকবাল ও লিটন দাসকে বিদায় করেন রাবাদা। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে রাবাদার প্রথম বলে বোল্ড হয়ে বিদায় নেন তামিম (৫)। ওই ওভারে রাবাদার শেষ বলে একটি ছক্কা হাঁকান নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে ক্রিজে আসা লিটন দাস। পরের ওভারে কাইল অ্যাবটের বলে আরেকটি চার মারেন তিনি। এরপর রাবাদার দ্বিতীয় ওভারের দ্বিতীয় বলেও চার মারেন লিটন। কিন্তু এক বল পরেই বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন এই ডানহাতি (১৭)। ফলে ২৪ রানেই ২ উইকেট হারায় বাংলাদেশ।

 

এর আগে টস জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন প্রোটিয়া অধিনায়ক হাশিম আমলা। তবে বাংলাদেশের বোলারদের তোপের মুখে দাঁড়াতেই পারেনি তার দল। ৪৬ ওভারে মাত্র ১৬২ রানেই ইনিংস গুটিয়ে গেছে প্রোটিয়াদের। ওয়ানডেতে বাংলাদেশের বিপক্ষে এটাই দক্ষিণ আফ্রিকার সর্বনিম্ন সংগ্রহ। এর আগে ২০০৭ বিশ্বকাপে ১৮৪ রানে অলআউট হয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। তবে সেটা পরে ব্যাট করে। আর ওই ম্যাচেই দক্ষিণ আফ্রিকাকে একবার হারিয়েছিল বাংলাদেশ। দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে সর্বোচ্চ ৪১ রান করেন ফাফ ডু প্লেসিস। প্রোটিয়াদের ব্যাটিং লাইনআপ ধসিয়ে দিতে ৩টি করে উইকেট নেন মুস্তাফিজুর রহমান ও নাসির হোসেন। ২টি উইকেট নেন রুবেল হোসেন। এ ছাড়া একটি করে উইকেট জমা পড়ে মাহমুদউল্লাহ ও মাশরাফির ঝুলিতে।

মিরপুরে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে নিয়মিত বিরতিতেই উইকেট হারাতে থাকে দক্ষিণ আফ্রিকা। ইনিংসের পঞ্চম ওভারে দক্ষিণ আফ্রিকা শিবিরে প্রথম আঘাত হানেন পেসার মুস্তাফিজুর রহমান। মুস্তাফিজের বাউন্সার বল ঠিকভাবে খেলতে না পেরে ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টে সাব্বির রহমানকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন কুইন্টন ডি কক। ৯ বলে ২ রান করেন এই ওপেনার। শুরুতেই ডি ককের বিদায়ের পর প্রতিরোধ গড়ে তোলেন হাশিম আমলা ও ফাফ ডু প্লেসিস। তবে ইনিংসের ১৩তম ও নিজের দ্বিতীয় ওভারে আমলাকে ফিরিয়ে প্রতিরোধ ভাঙেন রুবেল হোসেন। দারুণ এক ডেলিভারিতে আমলার স্টাম্প উপড়ে ফেলেনেএই সিরিজে আজই একাদশে সুযোগ পাওয়া রুবেল। ৩৭ বলে ২২ রান করেন আমলা। আমলা-প্লেসিস দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে আসে ২৯ রান।  এরপর ইনিংসের ১৯তম ওভারে বোলিংয়ে আসেন নাসির হোসেন। ইনিংসে নিজের প্রথম বলেই রিলে রুশোকে বোল্ড করে সাজঘরের পথ দেখান এই ডানহাতি স্পিনার। রুশোর ব্যাট থেকে আসে ৪ রান।

প্রাসঙ্গিক সংবাদঃ

  • ৭৯ রানে বাংলাদেশের জয়
  • বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে বাংলাদেশ
  • জয় দিয়ে বাংলাদেশের সূচনা
  • বিরাট কোহলির অনবদ্য ব্যাটিংঃ ফাইনালে ভারত
  • চেন্নাই ৫ উইকেটে হারিয়েছে বেঙ্গালুরুকে