স্বাগতম :
আজ: সোমবার, ডিসেম্বর ২৬, ২০১৬
শঙ্কামুক্ত নন হায়াৎ আইভী ডিএনসিসি উপনির্বাচন: ৩ মাসের জন্য স্থগিত বাগদাদে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরন অতিরিক্ত ডিআইজি পদমর্যাদায় রদবদল অতিরিক্ত সচিব ও যুগ্ম সচিব পর্যায়ে রদবদল নাখালপাড়ায় জঙ্গি অভিযান: নিহত ৩ দেশ কেন মাদক থেকে মুক্ত হতে পারছে না? মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়কের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস নির্মল সেনের পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত পুলিশ সপ্তাহ শুরু

জেলা পরিষদ নির্বাচন ২৮ ডিসেম্বর

পুলক চৌধুরী,এসবিডি নিউজ24 ডট কম: দেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে জেলা পরিষদ নির্বাচন। আর মাত্র একদিন বাদেই ২৮ ডিসেম্বর (বুধবার) সকাল ৯টায় জেলা পরিষদগুলোতে ভোটযুদ্ধ শুরু হবে, চলবে দুপুর ২টা পর্যন্ত। সোমবার মধ্যরাতেই শেষ করতে হবে নির্বাচনী প্রচারণা। ভোটকেন্দ্রের আশেপাশের এলাকায় মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে গতরাত থেকেই। আর মঙ্গলবার মধ্যরাত থেকে নিষিদ্ধ হবে আরো ৭ ধরনের যানচলাচল। এদিকে নির্বাচনে স্থানীয় কিছু সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘন ও প্রভাব খাটানোর অভিযোগ এসেছে। তাই সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে সোমবার ওই সব সংসদ সদস্যদের এলাকা ছাড়তে বলেছে নির্বাচন কমিশন।


নির্বাচন কমিশনার মো. শাহনেওয়াজ এসবিডি নিউজ24 ডট কমকে বলেন, ‘ভোটের আর মাত্র দু’দিন রয়েছে। সংসদ সদস্যদের কাছে অনুরোধ করছি- আপনারা এলাকা থেকে চলে আসেন। আমাদের অনুরোধ উপেক্ষা করে কেউ প্রভাব খাটানোর চেষ্টা করলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। সে যেই হোন না কেন- অনিয়ম করলে ছাড় দেয়া হবে না।’


নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, প্রথম বারের মতো অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া এ নির্বাচনে প্রতিটি কেন্দ্র তথা ওয়ার্ডে গড়ে ভোটার সংখ্যা ৬৯টি। পার্বত্য জেলা বাদে দেশের ৬১টি জেলা পরিষদে এ নির্বাচন হতে যাচ্ছে। যদিও এসব জেলার ২২টিতে চেয়ারম্যান পদে ইতোমধ্যে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীরা। ফলে ৩৯টি জেলায় চেয়ার‌ম্যান পদে ভোট হবে। এসব জেলায় ১২৪জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।


সূত্র আরো জানায়, জেলা পরিষদ নির্বাচনে সাধারণ সদস্য পদে ২ হাজার ৯৮৫ জন ও সংরক্ষিত (নারী) সদস্য পদে ৮০৫ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন। সাধারণ সদস্য পদে ১৩৯ ও সংরক্ষিত সদস্য পদে ৫৩ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। চেয়ারম্যান ছাড়াও প্রতিটি জেলায় ১৫ জন সাধারণ সদস্য ও পাঁচজন নারী সদস্য নির্বাচিত হবেন।


জেলা পরিষদ নির্বাচনের লক্ষ্যে প্রতিটি জেলাকে ১৫টি সাধারণ ওয়ার্ডে বিভক্ত করা হয়েছে। ৬১ জেলায় ৯১৫টি সাধারণ ওয়ার্ড ও ৩০৫টি সংরক্ষিত ওয়ার্ড রয়েছে। প্রতিটি ওয়ার্ডে একটি করে ভোট কেন্দ্র থাকবে। সেই হিসাবে ভোটকেন্দ্র থাকছে ৯১৫টি ও ভোটকক্ষ থাকছে ১ হাজার ৮৩০টি।


জানা গেছে, এই নির্বাচনে সরাসরি ভোট গ্রহণ হবে না। স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলোর নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরাই শুধু ভোট দেবেন। প্রত্যেক জেলার অন্তর্ভুক্ত সিটি করপোরেশনের (যদি থাকে) মেয়র ও কাউন্সিলর, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান, পৌরসভার মেয়র ও কাউন্সিলর এবং ইউপির চেয়ারম্যান ও সদস্যরা ভোট দেবেন। জেলা পরিষদে মোট ভোটার রয়েছেন ৬৩ হাজার ১৪৩ জন। এর মধ্যে পুরুষ ৪৮ হাজার ৩৪৩ জন ও নারী ১৪ হাজার ৮০০ জন।

প্রাসঙ্গিক সংবাদঃ

  • ৩০ ডিসেম্বর পৌরসভা নির্বাচন
  • ২৮ এপ্রিলঃ সিটি করপোরেশন নির্বাচন
  • ক্র্যাব বার্ষিক নির্বাচনঃ সভাপতি লাবলু, সাধারণ সম্পাদক সালেহ আকন
  • সিলেট প্রেসক্লাব নির্বাচন অনুষ্ঠিতঃ সেলিম ও সংগ্রাম যথাক্রমে সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত
  • ১ মে সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের নির্বাচন