স্বাগতম :
আজ: রবিবার, জানুয়ারী ১, ২০১৭
শঙ্কামুক্ত নন হায়াৎ আইভী ডিএনসিসি উপনির্বাচন: ৩ মাসের জন্য স্থগিত বাগদাদে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরন অতিরিক্ত ডিআইজি পদমর্যাদায় রদবদল অতিরিক্ত সচিব ও যুগ্ম সচিব পর্যায়ে রদবদল নাখালপাড়ায় জঙ্গি অভিযান: নিহত ৩ দেশ কেন মাদক থেকে মুক্ত হতে পারছে না? মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়কের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস নির্মল সেনের পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত পুলিশ সপ্তাহ শুরু

চেতনা জগৎ হোক আনন্দের

শুভাশিস ব্যানার্জি শুভ: ১ জানুয়ারির সকালের নতুন সূর্য আলোকিত করবে সব মানবের জীবন এই প্রত্যাশা আমাদের সকলের, স্বাগতম ২০১৭, স্বাগতম নতুন আরেকটি বছররে। চিরসংগ্রামী, লড়াকু ও আশাবাদী মানুষের প্রত্যাশা সব ধরনের স্থবিরতা কাটিয়ে নতুন বছর সবার জীবনে বয়ে আনবে অনাবিল আনন্দ। দেশে ফিরে আসবে শান্তি, সমৃদ্ধি, স্বস্তি, গতিময়তা। নতুন আশার আলো প্লাবিত করবে বাংলাদেশের দিগন্ত।


২০১৭ কে ঘিরে অনেক প্রত্যাশা, অনেক স্বপ্ন, অনেক কল্পনা। যদিও সময়ের বিচারে খুব দীর্ঘ নয় একটি বছর, মাত্র ৩’শ ৬৫টি দিন। তবু মানুষকে প্রতিটি দিনই ইঙ্গিতে-ইশারায় ডাকে। অজানা আগামীর পথে ডেকে নিয়ে যায়। দিন থেমে থাকে না, রাতও নয়। আলো ও আঁধারের অবিচ্ছিন্ন আবর্তনের ভেতর দিয়ে এবার এগিয়ে যাবে নতুন বছর। পুরনো বছরের ধূসর দিনগুলোর কথাও পাশাপাশি আমাদের মনে পড়বে কী পেয়েছি, কী হারিয়েছি?


সেই একই সূর্য, একইভাবে আজ কুয়াশার চাদর মুড়িয়ে উঠেছে পূর্বাকাশে। তবু তার উদয় ভিন্নতর। আজকের দিনটি আলাদা, কারণ একটি নতুন বর্ষপরিক্রমা শুরু হলো আজ থেকে। খ্রিস্টীয় ২০১৭ সালের আজ প্রথম দিন। আজ শুভ ইংরেজী নববর্ষ। নতুনের প্রতি সবসময়ই মানুষের থাকে বিশেষ আগ্রহ ও উদ্দীপনা। নতুনের মধ্যে নিহিত থাকে অমিত সম্ভাবনা। সেই সম্ভাবনাকে বাস্তবে রূপায়ণ করার সুযোগ করে দিতে এলো নতুন বছর।


বাংলাদেশে গ্রেগরিয়ান নববর্ষ পালনের রেওয়াজ বহু আগে থেকে অনুসৃত হলেও নিকট অতীতে তা প্রসারিত হয়েছে। বহু মানুষ এ দিন পরস্পর মিলিত হয়ে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। শুভেচ্ছা কার্ডে, এসএমএসে, ফেসবুক, ই-মেইলে হাজারো শুভেচ্ছা বার্তা ছড়িয়ে পড়ে মধ্যরাতেই। পুরনো বছর যেমনই যাক, নতুন বছর যেন ভালো যায় সে কামনা করেছে সবাই।


পুরনো বছরকে বিদায় জানানোর আগে ঘটা করে বছরের ঘটনাবলির ওপর নজর বোলানোর রেওয়াজও চালু। ২০১৬ জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে ঘটনাবহুল বছর। বহু খবর তৈরি হয়েছে এ সময়। অনেক খবর সবাইকে ভাবিয়েছে, নাড়া দিয়েছে, আলোড়িত করেছে। কোনো খবর করেছে উদ্বিগ্ন ও ব্যথিত। সকালবেলার সূর্যই বলে দেয়, দিনটি কেমন যাবে। গেল বছরই বলে দেয়, এ বছর কেমন যাবে।


প্রাগৈতিহাসিক কাল থেকেই বর্ষ বিদায় এবং নতুন বছরকে স্বাগত জানানো মানুষের আবেগ ও হৃদয়বোধেরই একটি অন্তর্নিহিত প্রতিফলন। ইতিহাস বলছে, প্রাচীন রোমের পৌরাণিক দেবতা জেনাসের নামানুসারে নতুন বছরের প্রথম মাস জানুয়ারির নামকরণ। দেবতা জেনাসের দুটি মুখ।


একটি সূর্য অপরটি চন্দ্র। সূর্য উত্তাপ বিকিরণ করে জীবন সঞ্চালন ঘটায়। চন্দ্র তার মধুর আলোয় জীবনের পরিপুষ্টি আনে। আবার জেনাসের একটি মুখ ভবিষ্যতের প্রতীক, অন্যটি অতীতের। তিনি পার্থিব মানুষের জীবনদ্বারের প্রহরী। তাই দৃষ্টি প্রসারিত করে আছেন আমাদের অতীত থেকে অনাগত ভবিষ্যতের দিকে। অতীত থেকে অনাগতের যাত্রাপথে যে চলমান প্রবাহমানতা, জেনাস তার নিয়ামক এবং নিয়ন্ত্রক। তিনি স্বস্তি, শান্তি আর কল্যাণের দেবতা।


প্রাচীন রোমানরা একে ভক্তিভরে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করতেন বিভিন্ন বিবাহ অনুষ্ঠানে। ব্যবসা–বাণিজ্য শুরুর আগে ও পরে। শিশু জন্মের মুহূর্তে। কৃষিকাজ শুরুর আরম্ভে কিংবা শস্য সংগ্রহ শেষে সামাজিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে। বহু প্রাচীনকালেই জীবন সম্বন্ধে মননশীল মানুষের মনে সুকুমার ভাবনার যে জাগরণ ভালোবাসা ও আবেগের সংমিশ্রণে ঘটেছিল, মানুষ তাকে বর্ষ বিদায়ের বেদনাময় অনুষ্ঠানে যেমন রূপায়িত করতে চেয়েছে, তেমনি জীবনের শুভ কামনায় জগতের অনিবার্য নিয়মে নতুনকেও অভিনন্দিত করতে সে ভোলেনি।


ইতিহাসবিদেরা জানান, ৪ হাজার বছর আগে প্রাচীন মেসোপটেমিয়ার বেবিলিয়নরা ‘আকিতু’ নামে নববর্ষ অনুষ্ঠান পালন করে সুখী, শান্তিপূর্ণ, শুভময় ভবিষ্যতের জন্য প্রার্থনা জানাতেন দেবতার দুয়ারে।


নতুন বছরে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে থাকা সকল বাঙ্গালির সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি প্রত্যাশা। আরও প্রত্যাশা হিংসা, বিদ্বেষ, বিভেদ ও হানাহানি পরিহার করে বাংলাদেশটা পরিণত হবে পৃথিবীর মধ্যে সবচেয়ে সুখী ও সুন্দর মানুষের দেশ।


নতুন বছরের কাছে প্রত্যাশা ভালো থাকার, সুন্দর থাকার। দেশটা হোক অস্থিতিশীলতা-সহিংসতা-নৃশংসতামুক্ত। চাই অর্থনৈতিক উন্নয়ন। নতুন বছরের কাছে চাওয়া একটি সুন্দর জীবন। সন্ত্রাসমুক্ত সমাজ, শিক্ষাঙ্গণে সুস্থ পরিবেশ। মানুষে মানুষে শ্রদ্ধাবোধ ও ভালোবাসা। সব মিলে হবে একটি শান্তিময় দেশ।


একটি বছরের সঙ্গে সঙ্গে আমাদের জীবন নামক প্রাসাদ থেকে ৩৬৫ দিনে একটি করে পাথর খসে পড়ে। ছোট হয়ে আসে আমাদের নাতিদীর্ঘ জীবন। আমরা বিগত বছরটি কীভাবে কাটিয়েছি, আগামী বছর কীভাবে কাটাব এবং এ বছরে আমাদের অর্জন কী কী? এর সঙ্গে আরো নানা প্রশ্ন ঘিরে ধরা উচিত আমাদের চেতনা জগৎকে। এখন আমাদের আনন্দ উল্লাসের এতটুকু ফুরসত থাকার কথা নয়। এখন শুধু হিসাব-নিকাশ মেলানোর সময়।

প্রাসঙ্গিক সংবাদঃ

  • বই হোক নিত্য সঙ্গী
  • স্বাগতম ২০১৫, বিদায় ২০১৪
  • ১ মেঃ শ্রমিকদের ন্যায্য মজুরি এবং অধিকার প্রতিষ্ঠিত হোক
  • নারী অধিকার প্রতিষ্ঠিত হোক,বৈষম্য দূর হোক
  • প্রতিটি দিন হোক বাংলা ভাষার জন্য