স্বাগতম :
আজ: শনিবার, আগস্ট ১১, ২০১২
শঙ্কামুক্ত নন হায়াৎ আইভী ডিএনসিসি উপনির্বাচন: ৩ মাসের জন্য স্থগিত বাগদাদে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরন অতিরিক্ত ডিআইজি পদমর্যাদায় রদবদল অতিরিক্ত সচিব ও যুগ্ম সচিব পর্যায়ে রদবদল নাখালপাড়ায় জঙ্গি অভিযান: নিহত ৩ দেশ কেন মাদক থেকে মুক্ত হতে পারছে না? মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়কের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস নির্মল সেনের পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত পুলিশ সপ্তাহ শুরু

ঈদকে সামনে রেখে বাড়ছে অপরাধ কর্মকাণ্ড ।। পুলিশ নীরব!

বিশেষ প্রতিনিধি,এসবিডি নিউজ24 ডট কমঃ পবিত্র ঈদুল ফিতরের আর মাত্র কয়েকদিন| এরই মধ্যে ঈদকে সামনে রেখে ২শ’ ৫০ কোটি টাকার টার্গেট নিয়ে মাঠে নেমেছে ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালী বেশ কয়েকটি চক্র| তাদের সহযোগিতায় রয়েছে কতিপয় দুর্নীতিবাজ কিছু পুলিশ সদস্যর| ঈদ আসার আগেই চড়া দামে বিক্রি হয়ে গেছে রাজধানীর ফুটপাত| মহানগরীর ১৬৩ কিলোমিটার ফুটপাতের প্রায় দেড়’শ কিলোমিটারই চলে গেছে দখলদারদের কব্জায়| এরই মধ্যে চাঁদা আদায়ের ৪শ’ লাইনম্যান নিয়োগ দেয়া হয়েছে| বর্তমানে রাজধানীর ফুটপাতকে ঘিরে চলছে চাঁদাবাজির মহোৎসব| খবর সংশিস্নষ্ট একাধিক নির্ভরযোগ্য সূত্রের| এদিকে শুক্রবার রাজধানীর গুলিসত্মানে রমনা ভবনের সামনে চাঁদাবাজিকে কেন্দ্র করে ফুটপাতের হকার এবং রমনা সুপার মার্কেটের দোকানদারদের মধ্যে সংঘর্ষে পুলিশসহ ১২ জন আহত হয়| যার ফলে রাজধানীর ফুটপাতে চাঁদাবাজির চলমান মহোৎসবের বিষয়টি প্রকাশ পায়| সূত্র জানায়, পুলিশ, স্থানীয় মাসত্মান, সরকারদলীয় থানা ও ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতাকর্মী এবং কয়েকটি হকার সমিতি এই ফুটপাত-বাণিজ্যের সঙ্গে জড়িত| এ ছাড়া ঢাকা সিটি করপোরেশনের (ডিসিসি) কতিপয় কর্মকর্তা-কর্মচারীও এরই মধ্যে শুরম্ন করেছেন বরাদ্দ-বাণিজ্য| সূত্রটি জানায়, ঈদকে সামনে রেখে পুরো রমজান মাসজুড়ে রাজধানীতে চলছে বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষের কেনাকাটা| নিম্ন ও মধ্য আয়ের লোকজন কেনাকাটার জন্য ভিড় করেন ঢাকার ব্যসত্ম রাসত্মার ফুটপাতগুলোতে| গত বারের মতো এবারো ফুটপাট দখল নিয়ে প্রথম রোজার শুরম্ন থেকেই বিক্রি করা হয়েছে| যদিও নগরীর ফুটপাত দখলমুক্ত রাখার দায়িত্ব ডিসিসি’র| কিন্তু রোজা এলেই সড়কের বেশির ভাগ অংশ হকারদের দখলে চলে যায়| এবার অবশ্য ডিসিসি আরো একটু এগিয়ে| গত মে মাসে সংস্থাটি এক চিঠিতে ফুটপাত থেকে নির্মাণসামগ্রী ও অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নেয়ার নির্দেশ দেয়| হকাররা জানান, নির্মাণসামগ্রী উচ্ছেদের পর তাদের কাছে ফুটপাত বরাদ্দ দেয়া হয়েছে| মূলত রমজান মাস সামনে রেখে ডিসিসি’র ওই চক্রটি স্থান বরাদ্দ বাণিজ্যের অংশ হিসেবে নানা ফন্দি-ফিকির করে থাকে|

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উপকমিশনার (উত্তর) মাহবুবুর রহমান রোজাকে কেন্দ্র করে ফুটপাতের চাঁদাবাজি বৃদ্ধির বিষয়টি স্বীকার করে বলেছেন, এটি রোধে গোয়েন্দা পুলিশ কাজ করছে| তারা এ বিষয়ে নজরদারি বাড়িয়েছে| তবে রাজধানীর গুলিসত্মান, মতিঝিল, পল্টন, শাহবাগ, ফার্মগেট, নিউমার্কেট, মিরপুরসহ বিভিন্ন এলাকার ফুটপাতের হকারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, স্বাভাবিক সময়ে তাদের দৈনিক ১০০ থেকে ১৫০ টাকা চাঁদা গুণতে হয়| রোজার শুরম্নতে এ চাঁদা বেড়ে দাঁড়ায় দৈনিক ২০০ থেকে ৩০০ টাকায়| তবে ২০ রোজার পর এ হার আরো বেড়ে যায়| ক্ষেত্রবিশেষে এ হার দৈনিক ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা পর্যনত্ম হয়ে থাকে| জাতীয় হকার ফেডারেশনের তথ্যমতে, রাজধানীতে বর্তমানে প্রায় দুই লাখ হকার রয়েছে| তবে রোজায় এ সংখ্যা বেড়ে প্রায় দ্বিগুণ হয়| গড়ে ২০০ টাকা করে চাঁদা উঠলে দৈনিক এ পরিমাণ দাঁড়ায় ৮ কোটি টাকা| হকারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, স্থান ও আকৃতিভেদে চাঁদার পরিমাণে পার্থক্য হয়ে থাকে| যারা ছাউনি টানিয়ে চৌকিতে শার্ট, প্যান্ট, কাপড়চোপড় বিক্রি করেন, তাদের চাঁদার হার একটু বেশি হয়| গুলিসত্মান এলাকায় এ ধরনের ব্যবসার জন্য রোজার মাসে হকারদের দৈনিক ২০০ থেকে ২২০ টাকা চাঁদা গুণতে হবে| মতিঝিল ও ফার্মগেট এলাকার হকারদের গুণতে হবে দৈনিক ২৩০ থেকে ২৫০ টাকা| আর নিউমার্কেট এলাকার হকারদের ক্ষেত্রে এ হার ২৮০ থেকে ৩০০ টাকা| ভাসমান হকারদের ক্ষেত্রে চাঁদার হার সবচেয়ে কম| তাদের দৈনিক ৫০ থেকে ৮০ টাকা গুণলেই চলে| এ ছাড়া যারা কাপড় ছাড়া অন্যান্য জিনিস বিক্রি করে থাকেন, তাদের ক্ষেত্রেও চাঁদার হার কম হয়ে থাকে| এসব হকারের প্রত্যেককে দৈনিক চাঁদা গুণতে হয় ৫০ থেকে ১০০ টাকা| এ ছাড়া রোজায় যারা ফুটপাতে বিভিন্ন ফল বা খেজুর বিক্রি করেন, তাদের স্থান ও আকৃতিভেদে গুণতে হয় ৪০ থেকে ৫০ টাকা| তবে যারা ফুটপাতে স্থায়ী ফলের দোকান দিয়ে বসেন, তাদের গুণতে হয় ৮০ থেকে ১০০ টাকা|
এদিকে শুক্রবার দুপুরে চাঁদাবাজিকে ঘিরে গুলিসত্মান বঙ্গবন্ধু এভিনিউ এলাকায় রমনা সুপার মার্কেট ও সামনে ফুটপাতের হকারদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে| এতে পুলিশসহ কমপক্ষে ১২ জন আহতের খবর পাওয়া গেছে| আহতদের মধ্যে এসআই মোতালেব, কনস্টেবল ইলিয়াস (২৫), দুই হকার কবির, রমিজ ও পথচারী জনিকে (২০) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে| জানা গেছে, মূলত ফুটপাতে চাঁদাবাজির ফলে রমনা মার্কেট ব্যবসায়ী ও হকারদের মধ্যে প্রায় পৌনে এক ঘণ্টা সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে| এসময় উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও ইট-পাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে| তবে পল্টন থানা পুলিশ জানিয়ে, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রেণে ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে|

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ হকার সমিতির একজন নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, সারা বছরই হকারদের চাঁদা গুণতে হয়| তবে ঈদ আসলে চাঁদার হার বেড়ে যায়| ক্ষেত্রবিশেষে দ্বিগুণ বা এরও বেশিও গুণতে হয়| আমরা প্রতিবছর আগে থেকেই পুলিশকে জানাই| কিন্তু পুলিশ এ ব্যাপারে কোনো ব্যবস্থা নেয় না| কারণ এ চাঁদার একটি অংশ পুলিশকেও দেয়া হয়|

প্রাসঙ্গিক সংবাদঃ

  • ডিসিসিকে চাঁদাবাজমুক্ত করার কলা-কৌশল
  • পুলিশের ব্যর্থতার সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে অপরাধ!
  • হরতালকে সামনে রেখে রাজধানীতে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছেঃ ডিএমপি
  • ১২ মার্চের ঢাকার মহাসমাবেশকে সামনে রেখে ধরপাকড় শুরু করেছে পুলিশ।। ১ দিনে গ্রেফতার ৫ শতাধিক!
  • গুলশান লেকের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ